Monday , July 4 2022
Home / স্বাস্থ্য সেবা / কলার উপকারিতা স্বাস্থ্যের জন্য জেনে নিন এক ঝলকে?

কলার উপকারিতা স্বাস্থ্যের জন্য জেনে নিন এক ঝলকে?

কলা এমন একটি ফল যার চাহিদা আমাদের দেশে সবচেয়ে বেশি । এর কারণ কলাতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমানে প্রোটিন ভিটামিন এবং খনিজ যা শরীরে এনার্জির চাবিকাঠি । এই জন্য বলা যায় স্বাস্থ্যের জন্য কলার উপকারিতা অনেক । শরীর ফিট রাখতে নিয়মিত একটি করে কলা খাদ্য তালিকায় রাখা প্রয়োজন ।

কলার উপকারিতা
কলার উপকারিতা স্বাস্থ্যের জন্য জেনে নিন এক ঝলকে

কলার উপকারিতা স্বাস্থ্যের জন্য জেনে নিন এক ঝলকে

 

স্বাস্থ্যের জন্য কলার উপকারিতা
ক. রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে »
নিয়মিত কলা খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে । কলাতে ভালো পটাসিয়াম পাওয়া যায় । ব্লাড প্রেসারের জন্য অধিকাংশ সময়

হার্ট অ্যাটাক হয় তার ঝুঁকি কমায় । আর এটি হাইপার টেনশন রোগ নিয়ন্ত্রণ করে । যেহেতু কলা সোডিয়াম মুক্ত তাই

রক্তের সমস্যার জন্য কলার উপকার অনেক ।

স্বাস্থ্যের জন্য কলার উপকারিতা

খ . হার্টের জন্য কলার উপকারিতা »
আমাদের হার্টের জন্য কলার উপকারিতা অনেক । তাবে নিয়মিত কলা খেলে শরীরের রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক থাকে ।

নিয়মিত খাদ্য তালিকায় কলা রাখলে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভবনা কম থাকে । কলাতে পটাসিয়ামের ভালো উৎস হওয়ার কারণে

রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়ায় । ফলে গবেষণায় দেখা গেছে যারা নিয়মিত কলা খায় তাদের অন্যদের তুলনায় হার্টের সমস্যা

কম এবং হজমের ক্ষমতা বেশি । এতে বলা যায় স্বাস্থ্যের জন্য কলা কার্যকরী ভূমিকা পালন করে ।

গ.বাচ্ছাদের কলা খাওয়ার উপকারিতা »
বাচ্ছাদের বেড়ে উঠার জন্য কলা খাওয়া খুব উপকার আসে । নিয়মিত কলা খাওয়ার ফলে চ্ছাদের বিকাশ হয় এর কারণ কলাতে

মিনারেল এবং ভিটামিন রয়েছে ।

ঘ. কিডনি ভালো রাখতে সহায়তা করে »
ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ এবং কিডনির কাজকর্ম ভালো রাখতে পটাসিয়াম খুব গুরুত্বপূর্ণ উপাদান । নিয়মিত কলা খাওয়ার ফলে

আমাদের কিডনির ফাংশন কার্যকরী রাখতে পারি । একটি গবেষণায় দেখা গেছে সপ্তাহে ৪-৬ টি কলা খেলে কিডনি রোগের

হাত থেকে ৫০ শতাংশ ঝুঁকি কমা হয় । তাই নিয়মিত কলা খান সুস্থ থাকুন দীর্ঘদিন ।

ঙ .কলায় অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের গুণ »
ফল ও সবজি অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের ভালো উৎস । কলাতে ভিন্ন ধরণের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট আছে । আর এই অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট

বিভিন্ন ধরণের স্বাস্থ্যের সঙ্গে সম্পর্কিত যেমন -হার্টের অসুখের মোকাবেলা, দূর্বলতা দূর করা ইত্যাদি । তাই অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট

সমৃদ্ধ কলার উপকারিতা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খু্ব প্রয়োজন ।

কাঁচা কলার উপকারিতা:
আমদের শুধু পেট খারাপের মত জটিল রোগের প্রকোপ কমাতে নয় ,কিছু কঠিন ও জটিল রোগের চিকিৎসাতে কাঁচা কলার কোন বিকল্প নেই । এতে আছে ফাইবার, কার্বোহাইড্রেট, পটাশিয়াম,ভিটামিন বি, ভিটামিন সি সহ বিভিন্ন উপকারি উপাদান । তাই বলা যায় কাঁচা কলার উপকারিতা অনেক ।নিয়মিত কাঁচা কলা খেলে কি ধরনের উপকার পাওয়া যায় তাহা আলোচনা করা হলো ।

পুষ্টির ঘাটতি দূর হয় :
কাঁচা কলায় উপস্থিত বেশ কিছু উপাদান খাবারে উপস্থিত পুষ্টিকর উপাদান গুলি যাতে ঠিক মতো শরীরে কাজে লাগাতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখে। ফলে নিয়মিত কাঁচা কলা রান্না করে খেলে অনায়াসে পুষ্টির ঘাটতি দূর হয় । এমনটা হওয়ার মাত্র শরীরের কার্যক্ষমতা যে বৃদ্ধি পায় তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না ।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি :
কাঁচা কলার পুষ্টিগুণ অনেক । বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত একটি করে কাঁচা কলা খাওয়া শুরু করলে দেহের ভিতরে অ্যান্টি অক্সিডেন্টের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে । এর প্রভাবে শরীরে উপস্থিত ক্ষতিকর টক্সিন উপাদানের মাত্রা যেমন কমে যায় । তেমনি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় । এতে বলা যায় কাঁচা কলার উপকারিতা যথেস্ট ।

কাঁচা কলার উপকারিতা
ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ :
কাঁচা কলা খেলে রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ার সম্ভবনাই থাকে না । বরং সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে । তাই ডায়াবেটিস রোগীরা নিশ্চিন্তে কাঁচা কলার পুষ্টিগুণ জেনে কলা খেতে পারেন ।

ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ :
গবেষণায় দেখা গেছে কাঁচা কলায় উপস্থিত পটাশিয়াম শরীরে প্রবেশ করার পর শিরা উপশিরার ভেতরে তৈরি হওয়া প্রেসারকে কমিয়ে ফেলে । এর জন্য রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ খুব সহজে চলে আসে ।

ওজন নিয়ন্ত্রণ :
কাঁচা কলায় বিদ্যমান রেজিস্টেন্স স্টার্চ হজম হতে সময় নেয় । এর জন্যে বহুক্ষণ ক্ষুধা পায় না । ক্ষুধা না পেলে খাবার খাওয়ার পরিমানও কমতে শুরু করে । ফলে দেহে ক্যালরির প্রবেশ ঘটে কম। এমনট যখন দীর্ঘদিন ধরে চলতে থাকে তখন ওজন কমতে সময় লাগে না । আর কাঁচা কলার পুষ্টিগুণ যেমন সব সময় অটুট থাকে । ঠিক তেমনি কাঁচা কলার উপকারিতা আমদের শরীরের জন্যে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ।

পটাশিয়ামের চাহিদা মেটে :
এক কাপ কাঁচা কলায় প্রায় ৫৩১ এম জি পটাশিয়াম থাকে,যা পেশির গঠনে উন্নতি ঘটায় এবং পাশাপাশি নার্ভ ও কিডনির কর্মক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে ।

নানাবিধ পেটের রোগের প্রকোপ কমায়:
কাঁচা কলায় রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ফাইবার যা শরীরে প্রবেশ করে হজম ক্ষমতা উন্নতি ঘটায় । পাশাপাশি ডাইজেস্টিভ ট্রাকের কর্মক্ষমতা বাড়াতে ও বাওয়েল মুভমেন্টের উন্নতি ঘটাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে ।

আরো কিছু পোস্ট আপনার জন্য পড়তে পারেন

উত্তেজক ট্যাবলেটে কেনো ঝুঁকছে যুবক-যুবতীরা

উচ্চ রক্তচাপ কমায় কুমড়ার বীজ

হ্যান্ডশেক বলে দিবে আপনার স্বভাব

গর্ভাবস্থায় কি খেলে বাচ্চা ফর্সা হবে

দ্রুত বীর্যপাত হওয়ার সমাধান কি?

সুস্থ থাকুন, নিজেকে এবং পরিবারকে ভালোবাসুন। আমাদের লেখা আপনার কেমন লাগছে আপনার যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তবে নিচে কমেন্ট করে জানান। আপনার বন্ধুদের কাছে পোস্টটি পৌঁছে দিতে দয়া করে শেয়ার করুন। পুরো পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। প্রতিদিনের আপডেট পেতে আমাদের Facebook লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন।
ধন্যবাদ।

শেয়ার করতে ভুলবেন না

Check Also

এখানে খরচ

এখানে খরচ নাই ওষুধ পাই বিনা মূল্যে

এখানে খরচ নাই,ওষুধ পাই বিনা মূল্যে নরসিংদী সাদত স্মৃতি পল্লী প্রকল্পে যারা ডাক্তার দেখাতে ইচ্ছুক, ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.