Thursday , July 7 2022
Home / রুপচর্চা / ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করার সহজ উপায়

ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করার সহজ উপায়

ব্রণ ও ব্রণের দাগ  ত্বকের ঔজ্জ্বল্য এবং সৌন্দর্য নষ্ট করে দেয় । অনেকে আবার খোটাখুটি শুরু করে দেয় যার কারণে জন্ম নেয় বাজে দাগ। তারপর সেই দাগ তাড়াতে এটাসেটা ব্যবহার করতে হয়।

প্রাকৃতিক উপাদানের সাহায্যে দূর করতে পারেন ব্রণ। এগুলো ব্রণের দাগও মিলিয়ে দেয় ধীরে ধীরে।

ব্রণ
ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করার সহজ উপায়

ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করার সহজ উপায়

মুলতানি মাটি: ব্রণ দূর করার কথা এলে প্রথমেই আসে মুলতানি মাটির নাম। ত্বক অতিরিক্ত তৈলাক্ত হলে ব্রণের সমস্যা দেখা দেয়। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে মুলতানি মাটি পানি দিয়ে পেস্ট করে মুখে ব্যবহার করতে পারেন। মুলতানি মাটি ত্বকের অতিরিক্ত তেল নিঃসরণ বন্ধ করে। ফলে ব্রণ থেকেও দূরে থাকা সম্ভব।

শশার রস: শশার রস মুখে ব্রণের দাগ দূর করতে ভীষণ কার্যকরী। স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করতে চাইলে শসার রসের সঙ্গে চালের গুঁড়া মিশিয়ে নিন। চাইলে সামান্য মধুও মিশিয়ে নিতে পারেন । সপ্তাহে দুই দিন এই প্যাক ব্যবহার করলে ত্বক ভেতর থেকে পরিষ্কার হবে। দূর হবে ব্ল্যাকহেডস ও হোয়াইটহেডস। ব্রণ থাকাকালীন এই স্ক্রাব করা যাবে না। ব্যবহার করতে হবে ব্রণের দাগ দূর করতে।

কাঁচা হলুদ ও চন্দনকাঠের গুড়া: ব্রণ তাড়াতে কাঁচা হলুদ এবং চন্দনকাঠের গুঁড়ার কার্যকরী দুটি উপাদান। সমপরিমাণ বাটা কাঁচা হলুদ এবংচন্দন কাঠের গুঁড়া নিয়ে এতে পরিমাণমতো পানি মিশিয়ে পেষ্ট তৈরি করুন। মিশ্রণটি এরপর ব্রণ আক্রান্ত জায়গায় লাগিয়ে রেখে কিছুক্ষণ পর শুকিয়ে গেলে মুখ ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। এই ব্রণের দাগ দূর করতে সাহায্য করে।

আপেল ও মধুর মিশ্রণ: ব্রণের দাগ দূর করার জন্য আপেল এবং মধুর মিশ্রণ ব্যবহার করতে পারেন। আপেলের পেষ্ট তৈরি করে তাতে ৪-৬ ফোঁটা মধু মিশিয়ে নেবেন। মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে এরপর মুখ ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে। সপ্তাহে ৫-৬ বার এটি ব্যবহার করা যেতে পারে।

চন্দন কাঠের গুঁড়া ও গোলাপ জল: চন্দন কাঠের গুঁড়ার ও গোলাপ জল মিশিয়ে পেষ্ট তৈরি করুন। এরপর এতে ২-৩ ফোঁটা লেবুর রস মেশাতে হবে। এই মিশ্রণ আপনার ব্রণের দাগ দূর করতে সাহায্য করবে। সপ্তাহে ৩-৪দিন ব্যবহার করতে পারলে ভালো ফল পাওয়া যাবে।

দারুচিনি গুঁড়া ও গোলাপজল: দারুচিনি গুঁড়ার সাথে গোলাপজল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্ট ব্রণের ওপর লাগিয়ে ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এতে ব্রণের সংক্রমণ, চুলকানি এবং ব্যথা অনেকটাই কমে যাবে।

সুস্থ থাকুন, নিজেকে এবং পরিবারকে ভালোবাসুন। আমাদের লেখা আপনার কেমন লাগছে ও আপনার যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তবে নিচে কমেন্ট করে জানান। আপনার বন্ধুদের কাছে পোস্টটি পৌঁছে দিতে দয়া করে শেয়ার করুন। পুরো পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। প্রতিদিনের আপডেট পেতে আমাদের Facebook লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন।
ধন্যবাদ।

শেয়ার করতে ভুলবেন না

Check Also

ক্র্যানবেরী

রূপচর্চায় ক্র্যানবেরী গুনাগুন জানুন?

আশা করি সবাই ভাল আছেন। আজ আপনাদের মাঝে অরেকটি আর্টিকেল নিয়ে হাজির হলাম। আজ আপনাদের ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.