Thursday , September 23 2021
Home / বাংলাদেশ / আমরা ভাটির সময় জাগি জোয়ার হলি ডুবি

আমরা ভাটির সময় জাগি জোয়ার হলি ডুবি

আমরা ভাটির সময় জাগি জোয়ার হলি ডুবি , ‘ঘর-দোয়ার, জায়গা-জমি, সব শেষ। ভাসি-বুড়ি আশ্রয় নিছি একটা দোকান ঘরে। আমরা ভাটির সময় জাগি, আবার জোয়ার হলি ডুবি।

আমরা
আমরা ভাটির সময় জাগি জোয়ার হলি ডুবি

          আমরা ভাটির সময় জাগি জোয়ার হলি ডুবি

এভাবে আর কত দিন থাকপো। বউ-বাচ্চানে আর পাত্তিছিনি। এবার ভাবিছি চুলি যাবো নড়াইলি। বাপ দাদার ভিটি-মাটি সব গেছে। দু’বছর হতি যাচ্ছে, ডুবি মরতিছি। বাঁধ হবার নাম নেই। বাঁধ টাধ হলি আবার আসব।’ হাঁটু পানিতে দাঁড়িয়ে জলবায়ু ধর্মঘটে অংশ নিয়ে কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলছিলেন সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগরের বাসিন্দা সাইদুল ইসলাম।

শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) বেলা ৩টার দিকে ‘আমরা ভাটায় জাগি, জোয়ারে ডুবি’ শ্লোগানকে সামনে রেখে জলাবদ্ধতা নিরসনে দ্রুত টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণ, সুপেয় পানি ও উপকূল সুরক্ষার দাবিতে সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগরে ‘জলবায়ু ধর্মঘট’ কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

পরিবেশবাদী আন্দোলন ফ্রাইডেস ফর ফিউচার বাংলাদেশ এবং ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস এর আহ্বানে এই ধর্মঘটে উপকূলের ভুক্তভোগী বাসিন্দারা অংশগ্রহণ করেন।

 

সাইফুল ছাড়াও অনেকে জানান, দীর্ঘ দেড় বছরের অধিক সময় সাতক্ষীরা উপকূলের বিস্তীর্ণ এলাকা লবণ পানিতে ডুবে আছে। জলাবদ্ধতা এবং করোনা এই অঞ্চলের মানুষকে দুর্বিষহ অবস্থায় ফেলেছে। মানুষের জীবনযাত্রা জোয়ার-ভাটা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে। বেড়িবাঁধ ভাঙ্গনের আতঙ্কে স্থানীয়দের সবসময় তটস্থ থাকতে হয়। অনেক এলাকায় যোগাযোগ ব্যবস্থা এখনও বিচ্ছিন্ন। চিকিৎসা, স্যানিটেশন, সুপেয় পানিসহ বিভিন্ন সংকটে বিপর্যস্ত উপকূলের লক্ষাধিক মানুষ।

এদিকে লিডার্সের নির্বাহী পরিচালক মোহন কুমার মন্ডল জানান, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবে আজ উপকূল ক্ষত বিক্ষত। মানুষের বেঁচে থাকাটাই চ্যালেঞ্জ।

তিনি বলেন, ‘মানুষ উপকূল ছেড়ে চলে যাচ্ছে। আগামী জলবায়ু সম্মেলনে আমরা কথার বাস্তবায়ন দেখতে চাই, ন্যায্য ক্ষতিপূরণ চাই।’

২০২০ সালের ২০ মে ঘূর্ণিঝড় আম্পান ও সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড হয় গোটা সাতক্ষীরা উপকূল। পানিবন্দি হয়ে পড়ে উপকূলীয় এলাকার ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ। ঘর-বাড়ি ধসে পড়ে দুই হাজারেরও বেশি। এখনও ডুবে আছে শতাধিক ঘর-বাড়ি। কাজ না থাকায় সেখানকার লোকজন বর্তমানে বেকার। উপকূলীয় এলাকায় বাস্তুচ্যুত হয়ে আছে হাজারও পরিবার। বেড়িবাঁধের রাস্তার ওপর খুপরি ঘরে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা।

আরো কিছু পোস্ট আপনার জন্য প্রয়োজনে দেখতে পারেন

রেকর্ড করে ভারতকে হারানোর অপেক্ষায় ইংল্যান্ড

সুস্থ থাকুন, নিজেকে এবং পরিবারকে ভালোবাসুন। আমাদের লেখা আপনার কেমন লাগছে ও আপনার যদি কোনো প্রশ্ন থাকে তবে নিচে কমেন্ট করে জানান। আপনার বন্ধুদের কাছে পোস্টটি পৌঁছে দিতে দয়া করে শেয়ার করুন। পুরো পোস্টটি পড়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। প্রতিদিনের আপডেট পেতে আমাদের Facebook লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন।

শেয়ার করতে ভুলবেন না

Check Also

ভারতে

ভারতে আটক সেই পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত

ভারতে আটক সেই পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত , পালিয়ে ভারতে গিয়ে ধরা পড়া পুলিশ কর্মকর্তা শেখ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *